একটু স্বস্তিতে থাকাও বোধ হয় এদেশের সাধারণ মানুষের ভাগ্যে নেই - 27 April 2012 - Blog - Alormela
Home » 2012 » April » 27 » একটু স্বস্তিতে থাকাও বোধ হয় এদেশের সাধারণ মানুষের ভাগ্যে নেই
5:26 PM
একটু স্বস্তিতে থাকাও বোধ হয় এদেশের সাধারণ মানুষের ভাগ্যে নেই

আবারও প্রমানিত হলো যে আমাদের দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং তার বাহিনী কেবল মাত্র  ব্যার্থতার রাশভারি বক্তৃতা দেয়া বাদে আর কিছুতেই পারদর্শি নয়। তারা যে কেবল কথা বলাতেই পারদশী অন্য কিছুতে নয় তা তারা বার বার প্রমাণ করছে। এমন একটা গুরু দায়িত্ব কেন যেন এমন একজন মানুষের ওপর চাপিয়ে দেয়া হলো তাই এখনো আমাদের মাথাতে আসলোনা। সাগর রুনি হত্যা কান্ড ঘটে যাওয়ার পর মুখে কোন রুপ লাগাম না দিয়ে যারা বলেছিল ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সব খুজে বের করা হবে। কিন্তু তাদের সেই ৪৮ ঘন্টা শেষ হচ্ছেনা। ৪৮ দিন ৪৮ মাস ৪৮ বছর এভাবে হয়তো ৪৮ টি যুগ পেরিয়ে গেলেও তাদের নির্ধারিত সময় শেষ হবেনা। ইলিয়াস আলীর নিখোজ হওয়ার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কোন বাচবিচার না করেই বলে দিলেন এখানে বিরোধী দলের নিজস্ব কারসাজি আছে। আচ্ছা ধরেই নিলাম যে বিরোধী দলের কারসাজি আছে কিন্তু রাষ্ট্রক্ষমতা তো আপনাদের হাতে। ঝানু ঝানু গোয়েন্দা,লাখ লাখ পুলিশ,অ্যাকশান হিরো রাব,সেনাবাহিনী সবতো আপনাদের হাতে। একটা দল বা এজন মানুষ অন্য একজনকে এই দেশে কোথায় লুকিয়ে রাখবে যার খবর এত এত গোয়েন্দা বা পুলিশ খুজে বের করতে পারবেনা। এখন মাননীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলছেন সরকারের কাছে ইলিয়াস আলী সম্পর্কে কোন তথ্য নেই। চিরুনী অভিযান চালান তাকে খুজে বের করার জন্য। আসলেই কি তাকে খুজে বের করার জন্য তেমন কোন তৎপরতা চালান হচ্ছে নাকি মানুষ ভোলানো কিছু কথা কেবল মিডিয়ার সামনে বলা হচ্ছে যে সত্যিই ইলিয়াস আলীকে সরকার খুজছে। এদিক থেকে ইলিয়াস আলীর পরিবার কার ওপর ভরসা করবে। একটা স্বাধীন দেশে এমন চলতে থাকলে স্বাধীনতার অর্থ কি একটু হলেও পাল্টে যায়না। এই ইস্যুকে কেন্দ্র করে হরতাল হলো। আর সেই হরতালে সারা দেশের মানুষের কি পরিমান দুর্ভোগ হলো তা কম বেশি সবার জানা। তার পর সেই হরতালে পিকেটারদের হাতে মারা গেলে দু একজন। একজন মানুষকে খুজে পাওয়ার জন্য যে আন্দোলন সেই আন্দোলন করতে গিয়ে যদি আরও অনেকের জীবন চলে যায় তাহলে সে আন্দোলনের মানে কি। জীবনের মুল্য কি এতটাই তুচ্ছ। এদেশে বা এ পৃথিবীতে যত মানুষ আছে সাধারন বিবেচনায় কারো জীবন কি কারো জীবনের তুলনায় কম মুল্যবান। আমেরিকার মানুষের কাছে ১ ডলারের মুল্য যেমন আমাদের কাছে ১ টাকার মুল্য তেমন হওয়াই স্বাভাবিক। ইলিয়াস আলীর মুল্য তার পরিবার এবং তার দলের কাছে যতটা মুল্যবান হরতালের সময় মারা যাওয়া মানুষগুলোর যে কারো পরিবারের কাছে তাদের জীবনের মুল্য ততটাই। তাহলে একজনকে বাচাতে গিয়ে অন্যকে মেরে ফেলে কি প্রমান দেখাতে চায় বিরোধী দল। অনেক ধৈর্য্যের পরিচয় দেয়া বিরোধী দল এখন অনেকটাই বেপরোয়া ভাবে চলতে শুরু করছে। তাতেকি তাদের জনপ্রিয়তা একটুও হ্রাস পাচ্ছেনা। অবশ্যই ইলিয়াস আলীকে খুজে পেতে হবে। তিনি শুধু সিলেট বা তার পরিবারের মানুষ নন। তিনি একজন বাংলাদেশী একজন বাঙ্গালী। সেহেতু তাকে আমরা সবাই ফিরে পেতে চাই। সরকারকে এ জন্য সত্যিকার অর্থে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে আর বিরোধী দলকে তা করতে সাহায্য করতে হবে। সংবিধান অনুযায়ী প্রতিটি নাগরিকের সমান অধিকার এ কথা বলা থাকলেও কেন আমার বাবাকে খুজে বের করতে গিয়ে আমি অন্যের বাবাকে মেরে ফেলবো। আমার বাবা না থাকায় আমার যেমন কষ্ট হয় তেমনি যার বাবাকে আমরা মেরে ফেলছি বা যার ছেলেকে আমরা মেরে ফেলছি তাদেরওতো কষ্ট হয়। নাকি তারা পাথরের মুর্তি। সরকার যেমন দেশের কথা ভাববে তেমনি বিরোধী দলকেও ভাবতে হবে। দেশে এই সময়টাতে চলছে পরীক্ষা। স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় সবখানে পরীক্ষা চলছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক বিষয়ের এম এ পরীক্ষা শুরু হয়েছে। যারা ২০১০ সালে পরীক্ষা দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার কথা তারা এখন পরীক্ষা দিচ্ছে। তাদের জীবন থেকে যে মুল্যবান সময় নষ্ট হয়ে গেছে এর জন্য দায়ি কারা। সামনে বিসিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি তারা কেমন করে নেবে যদি হরতালে কারনে তাদের একাডেমীক পরীক্ষা পিছাতেই থাকে। এইস এস সি পরীক্ষা বার বার পিছাতে থাকলে শিক্ষাথীদের মনে এর বিরুপ প্রভাব দেখা দেবে। ভবিষ্যতে এরা কিন্তু আপনার আমার নেতা হবেনা তা বলতে পারবেন না। এরাই কেউ বিএনপি কেউ আওয়ামী লীগ করবে বা অন্য দল করবে। অথচ আজকের এই খামখেয়ালীপনার জন্য দেখা যাবে তাদের মত পাল্টে গেছে। সদরে বা অগচোরে তারা নিশ্চই সরকার এবং বিরোধী দলের মুন্ডুপাত করছে তাদের পরীক্ষা পেছানোর জন্য। সরকার থেকে বিষয়টা পাশকাটিয়ে যাওয়া আর বিরোধী দলের লাগাতার হরতাল বা অন্য ভয়াবহ কর্মসূচী আসছে বলে হুমকী দেয়ার বিষয়টা আসলে দেশে গভীর সংকটের সৃষ্টির আশংকাই করা যায়। এই সংকট থেকে মুক্তির উপায় কি বা কোথায় আছেন ইলিয়াস আলী তা খুজে বের করার দায়িত্ব সরকার নিতে ব্যার্থ হলে তা তারা স্বীকার করুক যে তারা আসলে নখদন্তহীন বাঘের মতো। আর বিরোধী দলও যেন বার বার হরতাল দিয়ে দেশটার সর্বনাশ ডেকে না আনে। এই দেশটা আপনাদের একার নয় ১৬ কোটি মানুষের। স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা অবদান রেখেছিল তারা আপনাদের এই স্বেচ্ছাচারিতার জন্য দেশটা স্বাধীন করেননাই। আপনারা যারা এরকম করছেন তাদের পরিবার থেকেইতো একটা বিশাল পরিসীমায় মুক্তিযুদ্ধে অবদান রেখেছিল তাহলে সেই স্বাধীন দেশটার ক্ষতি হয় এমন কাজ আপনারা করতে সাহস পান কিভাবে। আপনাদের সেই মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কথাকি একটুও মনে হয়না। যে কোন মুল্যে ইলিয়াস আলীকে খুজে বেরকরুন আর সাগর রুনির হত্যা মামলার সুরাহা করুন। অনন্ত কিছু উন্নয়ন করতে না পারুন দেশের মানুষকে স্বস্তিতে থাকতে দিন।

 

 

 

Category: Computer | Views: 172 | Added by: zazafee | Rating: 0.0/0
Total comments: 0
Name *:
Email *:
Code *: